বাংলার চোখ | ওসি প্রদীপসহ ১৫ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল
  1. [email protected] : mainadmin :
বাংলার চোখ | ওসি প্রদীপসহ ১৫ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল
শনিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০১:২২ অপরাহ্ন

ওসি প্রদীপসহ ১৫ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল

বাংলার চোখ সংবাদ
  • সময় রবিবার, ১৩ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ৫৫ দেখেছেন

সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো. রাশেদ খান হত্যা মামলায় আদালতে আজ অভিযোগপত্র (চার্জশিট) দাখিল করা হয়েছে।

এ মামলায় টেকনাফ থানার বরখাস্তকৃত ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশসহ ১৫ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করে র‌্যাব।

আজ রোববার সকাল সোয়া ১০টার দিকে কক্সবাজার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তামান্না ফারাহর আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়।

আদালত অভিযোগপত্র গ্রহণ করেছে। অভিযোগপত্র দাখিল করার পর সিনহা হত্যা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা র‌্যাবের জ্যেষ্ঠ সহকারি পুলিশ সুপার মো. খায়রুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, সিনহা হত্যার ঘটনায় মাদক ও পুলিশের ওপর হামলার অভিযোগে করা তিনটি মামলার সত্যতা পাওয়া যায়নি। সিনহার বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌসের করা মামলাটি তদন্ত করে আজ আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়েছে।
অভিযোগপত্রে টেকনাফ থানার সাবেক ওসি প্রদীপ কুমার দাশ, বাহারছড়া তদন্তকেন্দ্রের পরিদর্শক লিয়াকত আলীসহ ১৫ জনকে অভিযুক্ত করা হয়েছে। এরমধ্যে টেকনাফ থানার সহকারি উপপরিদর্শক (এএসআই) সাগর দে পলাতক। বাকি ১৪ আসামি বর্তমানে কারাগারে আছেন।

গত ৩১ জুলাই রাত সাড়ে নয়টার দিকে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের শামলাপুর তল্লাশি চৌকিতে পুলিশের বাহারছড়া তদন্ত কেন্দ্রের তৎকালীন কর্মকর্তা পরিদর্শক লিয়াকত আলীর গুলিতে মেজর (অব.) সিনহা মো. রাশেদ খান নিহত হন বলে অভিযোগপত্রে উল্লেখ করা হয়।
ঘটনার পর সিনহার সঙ্গে থাকা সাহেদুল ইসলামকে (সিফাত) পুলিশ গ্রেফতার করে। এরপর সিনহা যেখানে ছিলেন, সেই নীলিমা রিসোর্টে ঢুকে তাঁর ভিডিও দলের দুই সদস্য শিপ্রা দেবনাথ ও তাহসিন রিফাত নুরকে আটক করে। নুরকে ছেড়ে দিলেও শিপ্রা ও সিফাতকে গ্রেফতার করে কারাগারে পাঠায় পুলিশ। এই দু’জন পরে জামিনে মুক্তি পান।

সিনহা হত্যার ঘটনায় মোট চারটি মামলা হয়। ঘটনার পরপরই পুলিশ বাদি হয়ে তিনটি মামলা করে। এরমধ্যে দুটি মামলা হয় টেকনাফ থানায়, একটি রামু থানায়। তিনটি মামলার দুটি মাদক রাখার অভিযোগে এবং একটি পুলিশের ওপর হামলার অভিযোগে করা হয়।

এ ঘটনায় সিনহার বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস একটি হত্যা মামলা করেন । গত ৫ আগস্ট আদালতে করা এই মামলায় টেকনাফ থানার সাবেক ওসি প্রদীপ কুমার দাশ, বাহারছড়া তদন্তকেন্দ্রের পরিদর্শক লিয়াকত আলীসহ পুলিশের নয় সদস্যকে আসামি করা হয়।

চারটি মামলারই তদন্তের দায়িত্ব পায় র‌্যাব। পরে র‌্যাব এ ঘটনায় প্রদীপ কুমার দাশ, লিয়াকত আলীসহ ১৪ জনকে গ্রেফতার করে। তাঁদের মধ্যে ১১ জন পুলিশ সদস্য ও ৩ জন গ্রামবাসী। পুলিশের করা তিনটি মামলার তদন্তে উত্থাপিত অভিযোগের কোনো সত্যতা না পাওয়ায় চূড়ান্ত প্রতিবেদন দিয়েছে র‌্যাব। গত বৃহস্পতিবার কক্সবাজার আদালতে তিন মামলার চূড়ান্ত প্রতিবেদন জমা দেওয়া হয় বলে তদন্তকারি সংস্থা র‌্যাব সূত্রে জানা যায়।

সামাজিক মাধ্যমগুলোতে শেয়ার করুন...

Leave a Reply

এই বিভাগের আরও খবর...
© All rights reserved © 2021 www.banglarchokhnews.com  
Theme Customized BY LatestNews