1. [email protected] : mainadmin :
  2. [email protected] : Mohsin Molla : Mohsin Molla
  3. [email protected] : subadmin :
বাংলার চোখ নিউজ | অনলাইন সংস্করণ | করোনায় হারিয়েছেন শিশু সন্তান, খাবার চেয়েও মেলেনি খাবার
সোমবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০২:১২ অপরাহ্ন

করোনায় হারিয়েছেন শিশু সন্তান, খাবার চেয়েও মেলেনি খাবার

বাংলার চোখ সংবাদ
  • সময়ঃ সোমবার, ২৬ জুলাই, ২০২১

সেলিম রেজা :

করোনায় আক্রান্ত হয়ে রেজাউল করিম মান্নানের আড়াই বছরের একটি মেয়ে শিশু ঢাকার একটি হাসপাতালে মারা গেছেন। মেয়ের চিকিৎসার জন্য নিজের থাকা ঘরটিও বিক্রি করে দিয়েছেন তিনি। ঘরে খাবার না থাকায় প্রতিবেশীদের কাছে খাবার চাইলেও মেলেনি খাবার। ঘটনাটি ঘটেছে সিরাজগঞ্জের কামারখন্দ উপজেলার ঝঐল ইউনিয়নের চালা গ্রামে।

রেজাউল করিম মান্নান বলেন, আড়াই বছরের মেয়ে মোছা. সাইমুন অসুস্থ থাকায় তাকে সিরাজগঞ্জের সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় সেখানে করোনা রির্পোটে পজেটিভ আসায় চিকিৎসক তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন। সেখানে নিয়ে গেলে শিশুটিকে দেখে ডাক্তার ভেন্টিলেটর দিতে বলে কিন্তু সেখানে শিশুদের ভেন্টিলেটর বা আইসিইউ না থাকায় গত শুক্রবার (২৩ জুলাই) সকাল সাড়ে দশটার দিকে শিশুটি মারা যায়, পরে ঢাকা থেকে নিজ এলাকায় এনে দাফন সম্পূর্ণ করা হয়।

এরপর থেকেই গ্রামের লোকজন আমাদের কাছে থেকে দূরে দূরে থাকে, ঘরে খাবার না থাকায় তাদের কাছে খাবার চাইলেও কেউ খাবার দেয়নি। কোন উপায় না পেয়ে ৯৯৯ নাম্বারে ফোন দেওয়া হয়। ৯৯৯ ফোন দিলে তারা কামারখন্দের ইউএনও এবং থানার ডিউটি অফিসারের নাম্বার দেন, ইউনএনওকে পুরো ঘটনা বলে তার কাছে থেকে খাবার আর নিজের পরিবারের সুচিকিৎসা জন্য তাকে অনুরোধ করেছি।

তিনি আরও বলেন, রবিবার (২৫ জুলাই) হামিদ ডাক্তারের কাছে পরামর্শ অনুযায়ী কামারখন্দ উপজেলা কমপ্লেক্সে থেকে আমার পরিবারকে করোনা টেস্ট করাতে বলেন। এজন্য সকাল থেকে একটি পাউরুটি খেয়ে হাসপাতালে বসে আছি।

তিনি আরও বলেন, বাচ্চার চিকিৎসার জন্য একটি থাকার ঘর ছিলো সেটি বিক্রি করে চিকিৎসা করিয়েছি এখন থাকার মতো কোন ঘর আর খাওয়ার মতো কিছু নেই। আমার পরিবারের যদি করোনা রির্পোটে পজেটিভ আসে তাহলে যেন সরকার আমাকে সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করেন আর ঘরে খাবার ব্যবস্থা যেন দ্রুত করে দেন।

এবিষয়ে ঝাঐল ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য (মেম্বার) মো. তারা বলেন, শুনেছিলাম মেয়েটি চিকিৎসা অবস্থায় ঢাকায় একটি হাসপাতালে মারা গেছে। ঘরে খাবার নেই এবিষয় আমাকে সে কিছু বলেনি, আমার সাথে তার ঈদের আগে ঝগড়া হয়েছিলো এজন্য কোন খোঁজ খবর নেওয়া হয়নি।

কামারখন্দ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মেরিনা সুলতানা বলেন, আপনার মাধ্যমেই খাবারের বিষয়টি জানলাম। তাকে খুব দ্রুত সময়ের ভিতরে খাবার পৌঁছিয়ে দেওয়া হবে।

 

এমটিকে/বাংলারচোখ

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

আরও খবর...
© All rights reserved © 2021 | বাংলার চোখ নিউজ  
Theme Customized BY LatestNews