1. [email protected] : mainadmin :
  2. [email protected] : Mohsin Molla : Mohsin Molla
  3. [email protected] : subadmin :
বাংলার চোখ নিউজ | অনলাইন সংস্করণ | গত দুই বছরেও চর,হাওর ও দ্বীপ এলাকার ব্যাংক কর্মীদের ভাতা দিচ্ছে না সরকারি ব্যাংক
শুক্রবার, ১৮ জুন ২০২১, ০৮:৪০ অপরাহ্ন

গত দুই বছরেও চর,হাওর ও দ্বীপ এলাকার ব্যাংক কর্মীদের ভাতা দিচ্ছে না সরকারি ব্যাংক

বাংলার চোখ সংবাদ
  • সময়ঃ বৃহস্পতিবার, ৩ জুন, ২০২১

সেলিম রেজা,স্টাফ রিপোর্টার :

সরকারি নির্দেশনা থাকলেও গত দুই বছরেও চর, হাওর ও দ্বীপ এলাকার সোনালী ও কৃষি ব্যাংক কর্মীদের ভাতা দিচ্ছে না সরকারি ব্যাংক। চৌহালীর রাষ্ট্রীয় ব্যাংক, স্কুল ও কলেজ গুলোর উপর ডিজিটাল যুগেও বৈষম্য। চর ও হাওর এলাকার চরভাতা প্রাপ্তর দের ওপর বৈষম্য নিরাশন করে এ ভাতা সচল করার দাবি ভুক্তভোগীদের।

যদিও সরকারের অন্যান্য সব দপ্তরে এ ভাতা কার্যকর করা হয়েছে। তুলনা মূলকভাবে পিছিয়ে থাকা এসব অঞ্চলের যোগাযোগ, শিক্ষা, চিকিৎসাসহ অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা বিবেচনা করে ২০১৯ সালে দ্বীপ, হাওর বা চরকেন্দ্রিক ১৬টি উপজেলায় চাকরিজীবীদের আলাদা ভাতা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় সরকার।

এসব উপলজেলায় কর্মরতদের গ্রেড অনুসারে মাসিক ভাতার হার নির্ধারণ করে প্রজ্ঞাপন জারি করে অর্থমন্ত্রণালয়। সংশ্নিষ্টরা জানান, সুযোগ-সুবিধায় তুলনামূলকভাবে পিছিয়ে থাকা এসব উপজেলায় পদায়ন করলেও যোগদানে গড়িমসি করেন বেশিরভাগ সরকারি কর্মকর্তা কর্মচারিরা ৷ যোগদান করলেও এখান থেকে বদলির জন্য নানা উপায়ে তদবির করেন। এমন বাস্তবতায় আলাদা ভাতা দেওয়ার উদ্যোগ নেয় সরকার । সরকারি বেতন কাঠামোর আলোকে এ সব প্রতিষ্ঠানগুলো পরিচালিত হয়। ফলে অন্য সব সরকারি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন ব্যাংকের কর্মকর্তা-কর্মচারীদেরও এ ভাতা পাওয়ার কথা। সবাই পাবে আমি পাব না তা হবে না তাহ হবে না এমন শ্লোহান বইছে চর হাওর ও দীপ অঞ্চলের ব্যাংক, মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও কলেজগুলোতে। তারা সরকারের এ বৈষম্য থেকে পরিত্রাণ ও ভাতা সচলের দাবি করেন।

জনতা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক, বালিকা বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও খাষকাউলিয়া সিদ্দিকীয়া ফাজিল সিনিয়র মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মোঃ বাদশা মিয়া জানান, সকল সেবামূলক সরকারি অফিসের কর্মকর্তা কর্মচারীরা চর বা হাওর ভাতা পাচ্ছে কিন্ত শিক্ষক কর্মচারিরা ভাতা পাচ্ছিনা ৷ ইতিমধ্যে আমরা চর ভাতার জন্য মানববন্ধন করেছি যা অনেক জাতীয় ইলেকট্রিক ও প্রিন্ট মিডিয়ায় প্রচার হয়েছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে আমাদের শিক্ষকদের জোর দাবী এ ভাতা চালু করে আমাদের বৈষম্য দুর করা হউক ৷

উপজেলায় কর্মরত রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন সোনালী ব্যাংক লিঃ এর ম্যানেজার মোঃ আঃ সবুর খান প্রতিবেদককে জানান,এই উপজেলাসহ অন্যান্য উপজেলায় সরকারের সব দপ্তরের দপ্তর প্রধান এবং কর্মচারীরা চর ও হাওর ভাতা পাচ্ছেন। উপজেলার সকল সরকারি দপ্তর, সরকসরি বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা কর্মচারিরা এ ভাতা পাচ্ছে । কিন্ত চৌহালীর রাষ্ট্রীয় ব্যাংকগুলো এ ভাতা পাচ্ছে না। এ উপজেলায় তাদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যাতায়াত করতে হয়। অন্য যে কোনো এলাকার তুলনায় এখানে যাতায়াত ভাড়া এবং দ্রব্যমূল্যের দাম অনেক বেশি। ভাতা কার্যকর না হওয়ার বিষয়টি হতাশাজনক।

রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক খাষকাউলিয়া শাখার কর্মরত ম্যানেজার মোঃ আকরামুল ইসলাম বলেন, সকল কর্মকর্তা কর্মচারি চর ভাতা পাচ্ছে অথচ সেবাদান মূলক প্রতিষ্ঠান সোনালী ও কৃষি ব্যাংক ষ্টাফরা এভাতা থেকে বঞ্চিত। চর, দ্বীপ ও হাওর ভাতা চলমান না থাকায় ষ্টাফ সংকটে পড়েছে প্রতিষ্ঠান গুলো। এ যুগেও এ উপজেলায় কর্মরত কর্মচারীদের সাথে বৈষম্যমূলক করা হচ্ছে বলে দাবি ভুক্তভোগীদের, যারফলেএলাকার সাধারণ মানুষ ঠিক মত সেবা পাচ্ছেনা।

লোকবল কম থাকায় কাজেরও সমস্যা হচ্ছে। সরকারের কাছে আমাদের জোরদাবি এ উপজেলায় কর্মরত কর্মকর্তা কর্মচারিদের চরভাতা বৈষম্য দুর করে সরকার ঘোষিত চরভাতা সচল করা হোক।

সরকার ঘোষিত হাওর, দ্বীপ ও চরাঞ্চল উপজেলাগুলো হলো- সিরাজগঞ্জের চৌহালী, কিশোরগঞ্জের ইটনা, মিঠামইন ও অষ্টগ্রাম, চট্টগ্রামের সন্দ্বীপ, কক্সবাজারের কুতুবদিয়া, নোয়াখালীর হাতিয়া, কুড়িগ্রামের রৌমারী ও চর রাজিবপুর, পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী, ভোলার মনপুরা, সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা, শাল্লা ও দোয়ারাবাজার; হবিগঞ্জের আজমিরীগঞ্জ এবং নেত্রকোনার খালিয়াজুরী।

 

এমটিকে/বাংলারচোখ

সামাজিক মাধ্যমগুলোতে শেয়ার করুন...

Leave a Reply

এই বিভাগের আরও খবর...
© All rights reserved © 2021 www.banglarchokhnews.com  
Theme Customized BY LatestNews