1. [email protected] : mainadmin :
  2. [email protected] : special_reporter : special reporter
  3. [email protected] : subadmin :
বাংলার চোখ নিউজ | অনলাইন সংস্করণ | ট্রায়ালের অনুমোদন পাচ্ছে তিন প্রতিষ্ঠান
মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই ২০২১, ১০:১৭ অপরাহ্ন

ট্রায়ালের অনুমোদন পাচ্ছে তিন প্রতিষ্ঠান

বাংলার চোখ সংবাদ
  • সময়ঃ বৃহস্পতিবার, ১৭ জুন, ২০২১

বাংলার চোখ নিউজ :

মানবদেহে নিজেদের উৎপাদিত করোনা টিকার ট্রায়াল পরিচালনার অনুমোদন চেয়েছিল বাংলাদেশের কোম্পানি গ্লোব বায়োটেক। আবেদনের পাঁচ মাস পর তাদের ফেইজ ওয়ান হিউম্যান ট্রায়ালের অনুমোদনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে নিয়ন্ত্রক প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ মেডিকেল রিসার্চ কাউন্সিল (বিএমআরসি)।

একই সঙ্গে ভারতের সরকারি প্রতিষ্ঠান ভারত বায়োটেক এবং চীনের সরকারি প্রতিষ্ঠান টিকা উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান আইএমবিসিএএমএস-কে টিকার ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের অনুমোদন দেওয়ার নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিএমআরসি।

কাউন্সিলের পরিচালক অধ্যাপক ডা. রুহুল আমিন বলেন, বুধবার বিএমআরসির ইথিক্যাল বোর্ড তিনটি প্রতিষ্ঠানকে ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের অনুমোদন দেওয়ার নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তবে এর আগে কতগুলো নিয়ম অবশ্যই পালন করতে হবে। ফেইজ ওয়ানের আগে বানর বা শিম্পাঞ্জির ওপর পরীক্ষা করতে হবে। এদের ওপর টিকাগুলোর কার্যকারিতা ও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার সব কাগজপত্র বিএমআরসিতে জমা দিতে হবে।

তিনি বলেন, আমরা প্রত্যেক সিআরওকে চিঠি দিয়ে বিষয়টি জানিয়ে দেব। যে তিনটি কোম্পানি কথা বলেছে, তাদের প্রত্যেককে চিঠি দেব। ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের অনুমোদনের ব্যাপারে সবাই ‘পজিটিভ’। এ ব্যাপারে কারও দ্বিমত নেই। আমরা যেসব শর্ত দিয়েছি, সেগুলো পূরণ করাও কঠিন না। এটা হয়ে যাবে আশা করি। আমরা তাদের ডাকব। ওনাদের কথা শোনার পর আমরা মিডিয়াকে ডেকে জানিয়ে দেব। পরে বিএমআরসির চাহিদা অনুযায়ী তথ্য-উপাত্ত যোগ করে ফেব্রুয়ারিতে সংশোধিত আবেদন জমা দেওয়া হয়। দেশে করোনাভাইরাসের মহামারি শুরুর পর গত বছর ২ জুলাই ওষুধ প্রস্তুতকারী গ্লোব ফার্মার সহযোগী প্রতিষ্ঠান গ্লোব বায়োটেক টিকা তৈরির কাজ শুরুর কথা জানায়। ৬ থেকে ৭ মাসের মধ্যে এই টিকা বাজারে আনা যাবে বলেও আশা প্রকাশ করেছিল তারা।

সেদিন সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, খরগোশের ওপর এ টিকার পরীক্ষামূলক প্রয়োগে ‘সফল’ হয়েছে। মানবদেহেও তা সফল হবে বলে আশাবাদী তারা। পরে গত বছর ৫ অক্টোবর গ্লোব বায়োটেক জানায়, ইঁদুরের ওপর প্রয়োগ করেও তাদের ওই সম্ভাব্য টিকা ‘কার্যকর ও সম্পূর্ণ নিরাপদ’ প্রমাণিত হয়েছে। গ্লোব বায়োটেকের উদ্ভাবিত টিকা পরে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন ক্যান্ডিডেট তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হয়। গত বছরের ২৮ ডিসেম্বর ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর গ্লোব বায়োটেক লিমিটেডকে পরীক্ষামূলক প্রয়োগের জন্য করোনাভাইরাসের টিকা উৎপাদনের অনুমতি দেয়।

 

এমটিকে/বাংলারচোখ

সামাজিক মাধ্যমগুলোতে শেয়ার করুন...

Leave a Reply

এই বিভাগের আরও খবর...
© All rights reserved © 2021 | বাংলার চোখ নিউজ  
Theme Customized BY LatestNews