1. [email protected] : mainadmin :
  2. [email protected] : special_reporter : special reporter
  3. [email protected] : subadmin :
বাংলার চোখ নিউজ | অনলাইন সংস্করণ | তথ্য সংগ্রহ করতে গিয়ে সাংবাদিক লাঞ্ছিত
শুক্রবার, ৩০ জুলাই ২০২১, ১১:০৫ পূর্বাহ্ন

তথ্য সংগ্রহ করতে গিয়ে সাংবাদিক লাঞ্ছিত

বাংলার চোখ সংবাদ
  • সময়ঃ মঙ্গলবার, ১৫ জুন, ২০২১

জামান ভূঁইয়া :

বেকারীতে তথ্য সংগ্রহ করতে গিয়ে বেকারী মালিক ও তার সন্ত্রাসী বাহিনীর দ্বারা নির্যাতনের স্বীকার হয়েছে তিন সাংবাদিকসহ এক সহকারী, উল্টো ৬১ হাজার টাকা, মুক্তিপণ ও তিনশত টাকার ননজুডিশিয়াল ফাকা ষ্ট্যাম্পে সাক্ষর দিয়ে মুক্তি পায় ওই বেকারী মালিকের নিকট হতে। ঘটনাটি ঘটেছে রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার বাসুদেবপুর ইউনিয়নের কামারপাড়া গ্রামে।

ঘটনার এজাহার সূত্রে জানা যায়, গোপন সুত্র ধরে রাজশাহীর গোদাগাড়ীর কামার পাড়া এলাকার নাহার ফুর্ডস এ্যান্ড বেকারীতে যাই। সে সময় উপস্থিত ছিলেন প্রথম ভোরের নিজস্ব প্রতিবেদক আলমগীর, দৈনিক জনতার কথা পরিচালক নাসির, ক্যামেরা পারসন শুভ ও দৈনিক মুক্তির স্টাফ রিপোর্টার সাফিয়ান স্বাধিন। আমরা একটি ভাড়া করা গাড়িতে কামার পাড়া গেছিলাম। আমরা যখন তাদের বেকারীর প্রধান গেটে পৌঁছালাম তখন তালা মারা ছিলো। ওই দরজার তালা নাড়তে থাকলে কারখানার ভেতর থেকে একজন কর্মচারি বের হয়। সে আমাদের কারখানার ভেতর নিয়ে যায়। ভিতরে প্রবেশ করে আমি দেখতে পাই কারখানার কর্মচারীরা অস্বাস্থ্যকর অবস্থায় বিভিন্ন ধরনের বেকারীর খাবার তৈরী করছে। আমরা আমাদের পেশাগত দায়িত্বের কারণে সেই অস্বাস্থ্যকর পরিবেশের ভিডিও এবং স্থির চিত্র নিয়ে ওই কারখানা থেকে বের হয়ে চলে আসি। হঠাৎ ওই বেকারির মালিক আব্দুল মতিন (বিপু) বের হয়ে আসে। আমাদেরকে দেখে বলে আমার সাথে কোন রকম কথা না বলা ছাড়ায় কেন চলে যাচ্ছেন। আমার সাথে বিষয়টা মিটমাট করে যান। আপনাদেরকে নিউজ করতে হবে না। আমরা যখন তাদের কথা না শুনি, তখন আমাদেরকে কারখানায় অবরুদ্ধ করে এলোপাথাড়ি মারধর করে। আমরা গুরতর জখম হই।

এ সময় আমাদের গলায় দেশিয় ধারালো অস্ত্র দিয়ে ঠেকায়। ওই সময় আমাদের কাছ থেকে তারা ১০০ টাকার নন জুডিসিয়াল ফাঁকা স্টাম্পে সই নেন। ৬১ হাজার টাকা, দুটো স্মার্টফোন ও ১ টি ডি.এস.এল.আর ক্যামেরাও ছিনিয়ে নেন। সবমিলিয়ে আনুমানিক মূল্য ৭৭ হাজার ৪’শ ৫০ টাকা। ঘটনাস্থলে পুলিশ গেলে ওই বেকইরর মালিক (বিপু) পুলিশ কে সমোঝতার কথা বলে চলে যেতে বলেন। এদিকে সাংবাদিকদের উপর নির্যাতনের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে জেলায় মিশ্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। নির্যাতনের স্বীকার সাংবাদিকরা হলো-চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার দারিয়াপুর গ্রামের নাসির উদ্দীন। আর তিন সাংবাদিক হল-অনলাইন নিউজ পোর্টাল জনতার কথার সম্পাদক আলমগীর, দৈনিক মুক্তির রাজশাহী জেলা প্রতিনিধি মোঃ সাফিয়ান স্বাধীন ও আলমগীরের সহযোগী শুভ।

অনলাইন জনতার কথা পোর্টালের সম্পাদক আলমগীর কামারপাড়াস্থ তার নাহার ফুডস এন্ড বেকারী কারখানায় তথ্য সংগ্রহ করতে গেলে বেকারী মালিক নিউজ না করার জন্য ৫ শত টাকা ঘুষ দিতে চায়।সাংবাদিকরা ঘুষ নিতে অনিচ্ছা প্রকাশ করে বেকারী থেকে বের হয়ে চলে যেতে চাইলে বেকারী মালিক এর নির্দেশে তার সন্ত্রাসী বাহিনীরা পথ অবরোধ করে জোরপূর্বক বেকারীর ভিতরে নিয়ে সাংবাদিকদের বেঁধে শুরু করে নির্মম নির্যাতন। এক পর্যায়ে সাংবাদিক নাসিরের বড় ভাই সেখানে গিয়ে হাজির হয়। তারপর স্থানীয় মেম্বার লিটনসহ স্থানীয় কয়েকজন নেতা সাংবাদিকদের ৬১ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করে এবং তাদের ছেড়ে দেয়। তবে সাংবাদিক আলমগীরের এক অডিও বার্তায় বলেন, তাদের নিকট হতে ৬১ হাজার টাকা নিয়েছে বেকারী মালিক দিপু ও স্থানীয় কয়েকজন।

সাংবাদিকদের নির্যাতন করে আপনি নিজে চাঁদাবাজি করলেন-এমন প্রশ্নে বেকারী মালিক বিপুর নিকট মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি প্রতিবেদকের সাথে পরে কথা বলবেন বলে জানান। বেকারী মালিক বিপু জানান, গোদাগাড়ী থানা পুলিশ আসলে পুলিশকে স্থানীয় নেতারা বলে মীমাংসা হয়ে গেছে। মীমাংসার কথা শুনে পুলিশ ফেরৎ চলে যায়। গোদাগাড়ী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) খলিলুর রহমান পাটোয়ারি বিষয়টি জানেননা বলে জানান। ‘বেকারী মালিক বলেছেন, আপনার থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়েছিল আর আপনি বলছেন জানিনা?’ প্রতিবেদকের এ প্রশ্নের জবাবে ওসি জানান, হয়তো আমার থানা পুলিশ গিয়েছিল, কিন্তু আপনার কথানুযায়ী মীমাংসা হয়ে গেছে, তাহলে পুলিশ কি করবে?

সাংবাদিকদের নিকট হতে মোটা অংকের টাকা নিয়ে তাদের ছেড়ে দেয়া হয়েছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে ওসি খলিল বলেন, টাকা নিয়ে ছেড়ে থাকলে তা অন্যায় করেছে। সাংবাদিকরা অভিযোগ দিলে সে বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। তবে উক্ত ঘটনায় আব্দুল মতিন (বিপু), বিপ্লব, আরমান, পলাশ, বাবু, কুতুবুল, মাসুম বিন আনাস, মানিক। এছাড়াও ১৪/১৫ জন অজ্ঞাত ব্যক্তির নামে মামলা দায়ের করা হয়। বৃহস্পতিবার (৬ মে) গোদাগাড়ী থানায় এ মামলা দায়ের করা হলেও এখানো কোন ব্যবস্থা নেননি গোদাগাড়ী থানা পুলিশ।

 

এমটিকে/বাংলারচোখ

সামাজিক মাধ্যমগুলোতে শেয়ার করুন...

Leave a Reply

এই বিভাগের আরও খবর...
© All rights reserved © 2021 | বাংলার চোখ নিউজ  
Theme Customized BY LatestNews