1. [email protected] : mainadmin :
  2. [email protected] : special_reporter : special reporter
  3. [email protected] : subadmin :
বাংলার চোখ নিউজ | অনলাইন সংস্করণ | নিকলী হাওরের নতুন পানির অপেক্ষাই ভ্রমণ পিপাসুরা
মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই ২০২১, ১০:১৩ অপরাহ্ন

নিকলী হাওরের নতুন পানির অপেক্ষাই ভ্রমণ পিপাসুরা

বাংলার চোখ সংবাদ
  • সময়ঃ রবিবার, ১৮ জুলাই, ২০২১

হৃদয় হোসাইন (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি :

কিশোরগঞ্জের নিকলীর হাওড় অপরূপ সৌন্দর্যে ঘেরা, নীল আকাশের দিখে তাকিয়ে উদাস হয়েছে অনেকেই । বর্ষার হাওরে শান্ত পানিতে রাতের চিত্রটা আরও দারুণ। জলরাশির বুকে বিচ্ছিন্ন ছোট ছোট গ্রাম।নিকলী উপজেলার ছাতিরচর ইউনিয়ন চারিদিকে পানি আর পানি তারই মধ্যে মাথা উচু করে ভেসে আছে সেই দ্বীপটি।

দ্বীপটি চারিদিকে ঘেরা সারি সারি হিজল গাছ। মন জুড়ানো এক অপরূপ সৌন্দর্য্য।মনে হবে বিশাল দিগন্ত বিস্তুত হাওরকে বঙ্গোপসাগরের মতো। মাঝে মধ্যে চোখে পড়বে দ্বীপের মত ভেসে থাকা ছোট ছোট গ্রাম। নৌকা দিয়ে ঘুরে বেড়াছে ছোট বড় সব বয়সের মানুষ। জেলেরা নদীতে জাল ফেলে মাছ ধরছে কেউ কেউ মনের সুখে ভাটিয়ালি গান গেয়ে অবসর সময় পার করছেন ।

নিকলী উপজেলা চেয়ারম্যান রুহুল কুদ্দুস ভূঞা (জনি) সাথে কথা বলে জানা যায় প্রতি বছরের মত এই বছর স্বাস্থাবিধি মেনে পর্যটন ভ্রমন করা যাবে। নিকলী উপজেলা প্রশাসন থেকে কোন নিদেষআজ্ঞা নেই। এই বছরও ইঞ্জিনচালিত ট্রলার স্পিডবোট ভাড়া এবং হোটেলের খাদ্যসামগ্রীর মূল্য নির্ধারণ করা হবে। খেয়ালখুশি মতো ভাড়া নিতে না পারে, নৌযানে মাত্রাতিরিক্ত পকেট কাটা না যায়।

সেই বিষয়ে নজর রাখবে নিকলী উপজেলা প্রশাসন।সেইসেত এই বছর যারা নিকলী হওর ভ্রমন করবেন স্বাস্থ বিধি মেনে নিকলী হাওর ভ্রমন করতে পারবেন। সেই সাথে আরো বলা হয়েছে ভ্রমনকারীরা যেন কোন ভোগান্তি না পড়ে সেই দিখে নজর রাখবেন। তবে এই বছর পযটদের গাড়ি পার্কিংয়ের জন্য কোন ব্যবস্তা নেই, উপজেলা প্রশাসনের থেকে। কয়েক মাস হলো হাওয়ের ফসলি ধান কাঠা শেষ হয়েছে । নতুন পানির আগমনের অপেক্ষাই হাজারো মানুষ। বর্তমানে হাওরে পানি ৪-৫ ফুট ।

সারা হাওর জুড়ে পরিপূর্ণ ভাবে নতুন পানি আসতে শুরু করেছে। নদীর ঘাটে থাকা ছোট বড় নৌকা গুলোই বর্ষার সময় হাওরের মানুষের বিনোদনের বাহন। নতুন পানির আগমনে বিস্তুত সবুজের ঘেরা হাওর খানাই খানাই পরিপূণ হবে পানিতে। দূর দূরন্ত থেকে লক্ষ লক্ষ পযΠটন আসে ঘুরতে, নিকলীর হাওড়ের সৌন্দয উপভোগ করার জন্য। নিকলী থেকে অষ্টগ্রাম, ইটনা, মিটামইন এর উদ্দেশ্যে রওনা হলেই দেখবেন কিছু দূরে দূরে ভেসে ওঠা ছোট ছোট দ্বীপের মত ঘরবাড়ি। ইঞ্জিল চালিত নৌকা চলতে শুরু করা মাত্রই হারিয়ে যেতে হয় জলরাশির রাজ্যে। যতদূরে চোখ যাবে, স্নিগ্ধ গ্রামের মতোই শান্ত অথৈ পাণি প্রাণ জুড়িয়ে দেবে বর্ষার সময় । সেই মন মাতানো ঝালাক ঝলাক ট্রলারের শব্দ শুনতে শুনতে কখন যে পৌচ্ছে যাবেন হাওরের মূল আকর্ষন ইটনা, মিটামইন, অষ্টগ্রাম, সড়কে বুঝতেই পারবে না। দূরের আকাশে চাঁদ আর তারা মেলা তাদের ছায়া এসে পড়ে হাওরের পানিতে। মায়াবী জোছনা।

এ জোছনায় হাবুডুবু খেতে মনটা লাফিয়ে উঠে। হালকা আলোয় আলোকিত গ্রামীণ চিত্রটা মনে রাখার মত। হাওড়ের বুক চিরে সাপের মত বয়ে চলা সড়কটি ভ্রমণ পিপাসুদের হাতছানি দেয়। কিশোরগঞ্জ জেলার ইটনা, মিঠামইন ও অষ্টগ্রাম উপজেলার প্রায় সবটুকু এলাকাজুড়ে বিস্তুত নিকলী হাওর। হাওরের মানুষ কল্পানাই করতে পারতো না এত সুন্দর যোগাযোগের ব্যবস্থা হবে। সেই সাথে কিশোরগঞ্জের নিকলী হাওরের সৌন্দয সারা দেশে ছড়িয়ে পড়বে। কিছুদিনের মধ্যে হাওরে সেই যৌবন ফিরে আসবে। বর্ষার সময়ে কিশোরগঞ্জের নিকলী হাওর, ইটনা, মিটামন এবং অষ্টগ্রাম আনাগোনায় মুখরিত থাকে। বিভিন্ন পযটন স্পট।

 

এমটিকে/বাংলারচোখ

সামাজিক মাধ্যমগুলোতে শেয়ার করুন...

Leave a Reply

এই বিভাগের আরও খবর...
© All rights reserved © 2021 | বাংলার চোখ নিউজ  
Theme Customized BY LatestNews