1. [email protected] : mainadmin :
  2. [email protected] : Mohsin Molla : Mohsin Molla
  3. [email protected] : subadmin :
বাংলার চোখ নিউজ | অনলাইন সংস্করণ | পদচারণায় মুখর সিদ্ধিরগঞ্জের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো
বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ০৭:১৩ অপরাহ্ন

পদচারণায় মুখর সিদ্ধিরগঞ্জের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো

বাংলার চোখ সংবাদ
  • সময়ঃ রবিবার, ১২ সেপ্টেম্বর, ২০২১

এ কে এম নেজামউদ্দিন :

দীর্ঘ দেড় বছর পর শিক্ষার্থীদের পদচারণায় মুখর সিদ্ধিরগঞ্জের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধানরা শিক্ষার্থীদের স্বাগত জানাতে পূর্ব প্রস্তুতি অনুযায়ী হ্যান্ড সেনিটাইজার ও তাপমাত্রা মাপার যন্ত্র নিয়ে গেটে প্রস্তুত ছিল। শিক্ষার্থীরা গেটে আসা মাত্রই তাদের তাপমাত্রা মেপে ও হ্যান্ডস্যানিটাইজার লাগিয়ে ভিতরে প্রবেশ করছে।

এ সময় সকলের মুখে ছিল মাস্ক। এভাবেই সিদ্ধিরগঞ্জের প্রতিটি বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীরা প্রবেশ করেছে। কোন কোন বিদ্যালয়ে প্রবেশ করেই শিক্ষার্থীরা আনন্দে আত্মহারা হতে দেখা গেছে। সিদ্ধিরগঞ্জের শতাধিক স্কুলের একই চিত্র বলে জানা গেছে।

সিদ্ধিরগঞ্জ থানা এলাকর মিজমিজি পাইনাদী ৯৮নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে রোববার সকাল সাড়ে ৯টা। ঢং ঢং করে বেজে উঠলো কাঙ্খিত ঘণ্টা। আর এর  মধ্য দিয়েই দীর্ঘ ১৮ মাস পর শুরু হলো প্রথম দিন। স্কুলে প্রবেশ করেই আনন্দ-উচ্ছ্বাসে আত্মহারা হয়ে পড়ে শিক্ষার্থীরা।

এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রতিটি শ্রেণিকক্ষ, আঙিনা সাজানো হয় রঙিন কাগজ, জরির মালা, বিভিন্ন রঙের বেলুন ও কাগজের ফুল দিয়ে। এতে অনেকটা আনন্দে আপ্লুত হয়ে পরে শিক্ষার্থীরা।

স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা নুসরাত চৌধুরী বলেন, ‘স্কুলের সকল শিক্ষিকা একত্রিত হয়ে স্কুল খোলার কাজে পরিষ্কার-পরিছন্নতার জন্য নিয়জিত ছিলাম। স্কুল খোলার শুরুতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ক্ষেত্রে ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য মাস্ক পরিধান করানো হয়েছে।

এছাড়াও অভিভাবকদেরকে স্বাস্থ্যবিধি সম্পর্কে বলা হয়েছে। অপর স্কুল সিদ্ধিরগঞ্জের মিজমিজি পাইনাদী রেকমত আলী উচ্চ বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায়, দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী ও এসএসসি পরীক্ষার্থীরা স্কুলের প্রধান ফটকে লাইনে দাঁড়িয়ে আছে। এ সময় স্যানিটাইজ এবং ইনফারেড থার্মোমিটার দিয়ে শিক্ষার্থীদের তাপমাত্রা মেপে তাদের প্রবেশ করানো হচ্ছে।

অত্র বিদ্যালয়ের সহ-প্রধান শিক্ষক এম এ মতিন জানান, শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও মাউশির সকল নির্দেশনা মেনে শিক্ষার্থীদের প্রবেশ করানো হচ্ছে। এছাড়াও একেক দিন একেক শ্রেণির ক্লাস করানো হবে। সে হিসাবে আজ  (রোববার) আমরা দশম ও এসএসসি পরীক্ষার্থীদের ক্লাশ রয়েছে।

শিক্ষার্থীরা জানায়, স্বাস্থ্যবিধি মানতে কোন সমস্যা নাই। তবে দীর্ঘদিন পর স্কুল আসতে পেরে এবং বন্ধুদের সরাসরি দেখা হওয়ায় ভালোই লাগছে। এতে পড়ালেখায় আরও বেশি মনোযোগি হওয়া যাবে। অভিভাবকের সাথে দেড় বছর পর স্কুলে এসেছে দশম শিক্ষার্থী মাজেদ। এতোদিন পর স্কুলে এসে খুশি সে। শিক্ষার্থীর অভিভাবক বলেন, এখন যা নিয়ম কানুন দেখছি তাতে ভালো লাগছে। সরকার যেভাবে বলেছে সেভাবে মেনে চললে নিরাপদ।

 

 

এমটিকে/বাংলারচোখ

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

আরও খবর...
© All rights reserved © 2021 | বাংলার চোখ নিউজ  
Theme Customized BY LatestNews