1. [email protected] : mainadmin :
  2. [email protected] : subadmin :
বাংলার চোখ | মার্চে বিএনপির কাউন্সিল
শনিবার, ১৭ এপ্রিল ২০২১, ০৭:৫৮ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজঃ
‘লকডাউন’ এখনো কার্যকর হয়নি সর্বত্র ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড ১০১ জনের মৃত্যু করোনায় দেশে প্রথম শতাধিক লোকের মৃত্যু নরসিংদী জেলা পরিষদ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা সামগ্রী জেলা হাসপাতালে হস্তান্তর শরীয়তপুরে পূর্বশত্রুতার জেরে যুবককে কুপিয়ে হত্যা রূপগঞ্জের চনপাড়ায় ছাত্রলীগ নেত্রীর বাড়িতে হামলা-ভাংচুর-লুটপাট-শ্লীলতাহানী সিলেটের গোলাপগঞ্জে মন্দিরে তরুণীকে ধর্ষণের চেষ্টা,গ্রেফতার ১ তালতলা হইতে বারদী রাস্তার সংস্কার কাজে চরম দূর্নীতির অভিযোগ এলাকাবাসীর লকডাউন! বাঁধা দেওয়া কি সঠিক হচ্ছে? প্রশ্ন সচেতন মহলের ৩০ বছর পর পিডিবি’র কাছ থেকে জায়গা পেলেন ফেঞ্চুগঞ্জের একরাম আলী

মার্চে বিএনপির কাউন্সিল

বাংলার চোখ সংবাদ
  • সময় শনিবার, ৩ অক্টোবর, ২০২০
  • ৮২ দেখেছেন

আগামী মার্চে দলের সপ্তম জাতীয় কাউন্সিল করার টার্গেট নিয়ে এগোচ্ছে বিএনপি। সেই লক্ষ্যে এরই মধ্যে দল গোছানোর কাজ শুরু হয়েছে। অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনগুলোর কার্যক্রমও শুরু হয়েছে। খুব শিগগিরই বিএনপির সাংগঠনিক ৮২ জেলা পুনর্গঠনের কাজ শুরু হবে। আগামী তিন-চার মাসের মধ্যে অঙ্গ-সংগঠনের পাশাপাশি মূল দল গোছানো শেষ করতে চায় দলটি। এরপর করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে নতুন বছরের মার্চে কাউন্সিল করা হবে। এর আগে দলের প্রধান বেগম খালেদা জিয়াকে কারামুক্ত করতে আইনি লড়াই চালিয়ে যাবে বিএনপি।

জানা যায়, পরিবারের পক্ষ থেকে সরকারের সঙ্গে সমঝোতা করে বেগম জিয়ার স্থায়ী মুক্তির প্রক্রিয়াও চলবে। দলের নেতা-কর্মীরা মুক্ত খালেদা জিয়াকে নিয়ে কাউন্সিল করতে চায়। তবে দলের একটি সূত্র এও বলছে, আগামী বছরের মার্চে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী অনুষ্ঠান পালন করবে সরকার। বিএনপিও পৃথকভাবে স্বাধীনতার ৫০ বছরের পূর্তি পালন করতে চায়। সে কারণে মার্চ মাসে বিএনপির কাউন্সিল না হয়ে এপ্রিলে বা পরবর্তী সুবিধাজনক সময়ে হতে পারে।

সর্বশেষ ২০১৬ সালের ১৯ মার্চ বিএনপির ষষ্ঠ জাতীয় কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়। তিন বছর পরপর দলীয় কাউন্সিল করার গঠনতান্ত্রিক বাধ্যবাধকতা রয়েছে। গত বছরের মার্চে বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির মেয়াদ শেষ হয়েছে। প্রায় দেড় বছর ধরে মেয়াদোত্তীর্ণ বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটি। কিন্তু দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার কারাগারে থাকা, করোনাভাইরাসসহ বিভিন্ন কারণে মেয়াদ শেষ হওয়ার পরও কাউন্সিল করতে পারেনি বিএনপি।

এ প্রসঙ্গে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর  বলেন, ‘আমরা তো কাউন্সিলের উদ্দেশ্যে দল পুনর্গঠনের উদ্যোগ নিয়েছিলাম। কিন্তু করোনাভাইরাস সেখানে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে। এখনো করোনা শেষ হয়নি। এখন আমাদের সামনে মূল চ্যালেঞ্জ হচ্ছে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা। এরপর সময় সুযোগ হলে দলের কাউন্সিল হবে। কিন্তু এ মুহূর্তে কাউন্সিলের কোনো চিন্তাভাবনা নেই। অঙ্গ সংগঠন পুনর্গঠন হচ্ছে। বিএনপির জেলা-উপজেলা পর্যায়ের কমিটি হবে। এরপর যথাসময়ে কেন্দ্রীয় কাউন্সিল হবে।’

দলীয় সূত্রে জানা যায়, আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে সারা দেশে কমিটি পুনর্গঠনের কাজ শেষ করার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। ইতিমধ্যে থানা-পৌর-ইউনিয়নসহ সব পর্যায়ের কমিটির হালনাগাদ তথ্য চেয়ে জেলা নেতাদের কাছে চিঠি দেওয়া হয়েছে। এ দিকে শীত মৌসুমে করোনার প্রাদুর্ভাব আরও বাড়তে পারে। এ জন্য আসছে শীত মৌসুমটাকে গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করবে দলটি। আর দেশব্যাপী করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব না কমলেও বিএনপি পরবর্তীতে সুবিধাজনক সময়ে কাউন্সিল করবে। তবে কাউন্সিল করতে তৃণমূলের নেতা-কর্মীদের ব্যাপক চাপ রয়েছে।

জানা যায়, আগামীর কাউন্সিলে বিএনপিতে তরুণ নেতৃত্বের বিকাশ ঘটবে। সাবেক ছাত্রনেতাদের দেখা যাবে বিভিন্ন পদে। দলের স্থায়ী কমিটি থেকে শুরু করে কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটিতে অপেক্ষাকৃত তরুণ নেতাদের ঠাঁই করে দেওয়া হবে। কারাগারে যাওয়ার আগে বেগম জিয়া সর্বশেষ নির্বাহী কমিটির সভায় বলেছিলেন, আগামীতে সব কমিটিতেই তরুণদের জায়গা করে দেওয়া হবে। বিএনপি নেতা-কর্মীরাও বলছেন, দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানও অপেক্ষাকৃত তরুণ। তার চিন্তা চেতনাও অনেকটা তরুণ নেতাদের নিয়ে। তবে বিএনপির কেউ কেউ বলছেন, সামনের কমিটি হবে নবীন-প্রবীণ সমন্বয়ে। এক্ষেত্রে কাউন্সিলে বিগত আন্দোলন সংগ্রামে ত্যাগী নেতাদের মূল্যায়ন করা হবে। সুবিধাভোগী ও সরকারের সঙ্গে আঁতাত করে চলা নেতাদের রাখা হবে পেছনের সারিতে।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, জাতীয় কাউন্সিলের আগে প্রতিটি জেলা, উপজেলা বা থানার সব ইউনিট সম্পন্ন করতে হয়, যা ইতিমধ্যে শুরু হয়েছে। তবে বৈশ্বিক ও বাংলাদেশে স্বাভাবিক পরিস্থিতির জন্য আমাদের অপেক্ষা করতে হবে।

বিএনপির দায়িত্বশীল এক নেতা বলেন, আগামীর কাউন্সিলে বিএনপির নির্বাহী কমিটির আকার ছোট হতে পারে। দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের মনোভাব হচ্ছে, ছোট আকারের ‘শক্তিশালী’ নির্বাহী কমিটি। বর্তমান কমিটির মতো ‘ঢাউস’ কমিটি করা হবে না। এ নিয়ে বিভিন্ন মহলে নানা সমালোচনা হয়েছে। অনেক অযোগ্যরাও কমিটিতে ঠাঁই পেয়েছেন। সেখানে সর্বোচ্চ ২৫১ বা ২৭১ সদস্যের নির্বাহী কমিটি করার চিন্তা-ভাবনা করা হচ্ছে। এক্ষেত্রে গঠনতন্ত্র সংশোধন করে দলের সর্বোচ্চ নীতি-নির্ধারণী ফোরাম স্থায়ী কমিটি, ভাইস চেয়ারম্যান, যুগ্ম মহাসচিব, সাংগঠনিকসহ সব সম্পাদকীয় পদের সংখ্যাও কমতে পারে।

বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু বলেন, করোনা মহামারীর কারণে প্রায় ৬ মাস কমিটি গঠন ও পুনর্গঠনসহ সাংগঠনিক কার্যক্রম বন্ধ থাকার পর গত ২০ সেপ্টেম্বর থেকে আবার শুরু হয়েছে। প্রস্তুতির কাজ পুরোপুরি সম্পন্ন হওয়ার পরই জাতীয় কাউন্সিলের আয়োজন করা হবে। আর সেক্ষেত্রে প্রধান প্রস্তুতিটাই হলো জেলা-উপজেলা কমিটি পুনর্গঠনের মাধ্যমে কাউন্সিলরদের তালিকা প্রস্তুত করা। সেটি যতক্ষণ পর্যন্ত না হবে ততক্ষণ পর্যন্ত জাতীয় পর্যায়ের কাউন্সিল আয়োজন করা সম্ভব নয়।

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ বলেন, করোনার কারণে সাংগঠনিক কার্যক্রম দীর্ঘদিন স্থগিত থাকার পর তা আবার শুরু হয়েছে। কমিটি পুনর্গঠন কার্যক্রম একটি চলমান প্রক্রিয়া। যথাসময়ে এই পুনর্গঠনের কাজ শেষ করে জাতীয় কাউন্সিলের আয়োজন করা সম্ভব হবে।

সামাজিক মাধ্যমগুলোতে শেয়ার করুন...

Leave a Reply

এই বিভাগের আরও খবর...
© All rights reserved © 2021 www.banglarchokhnews.com  
Theme Customized BY LatestNews
error: Content is protected !!