1. [email protected] : mainadmin :
  2. [email protected] : subadmin :
বাংলার চোখ | শেরপুরে ভোটগ্রহণে উৎসবমুখর পরিবেশ
রবিবার, ০৯ মে ২০২১, ১০:৪২ অপরাহ্ন

শেরপুরে ভোটগ্রহণে উৎসবমুখর পরিবেশ

বাংলার চোখ সংবাদ
  • সময়ঃ রবিবার, ১৪ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে শেরপুর সদর ও শ্রীবরদী পৌরসভায় ভালোবাসার মানুষকে নির্বাচিত করতে চতুর্থ ধাপে উৎসবমুখর পরিবেশে ভোটগ্রহণ চলছে।

ইভিএম-এ ভোট হওয়ায় ভোটারদের মাঝে ভোটদানের আগ্রহও বেশ দেখা যাচ্ছে। আজ রবিবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) সকাল ৮টায় শুরু হয় ভোটগ্রহণ। শুরু থেকেই কেন্দ্রগুলোতে ভোটারদের উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায়। কেন্দ্রে কেন্দ্রে নারী ভোটারদের ব্যাপক উপস্থিতি রয়েছে।

১ নম্বর ওয়ার্ডের নবীনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, আদর্শ বিদ্যাপীঠ, রাজবলস্নভপুর রামকিশোর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ৩ নম্বর ওয়ার্ডের শেখহাটি সরকারি প্রাথমিকি বিদ্যালয়, ঢাকলহাটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ২ নম্বর ওয়ার্ডের সরকারি ভিক্টোরিয়া একাডেমি, ৯ নম্বর ওয়ার্ডের কালিগঞ্জ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র ঘুরে প্রতিটি কেন্দ্রেই দীর্ঘ সারি দেখা যায়। প্রতিটি কেন্দ্রেই আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের ব্যাপক নজরদারি করতে দেখা গেছে।

সুষ্ঠু ভোটগ্রহণ নিশ্চিত করতে প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত, বিচারিক হাকিমের সংক্ষিপ্ত বিচার আদালত, বিজিবি, র‍্যাব ও পুলিশের স্ট্রাইকিং ফোর্সের টহল ও ব্যাপক তৎপরতা লক্ষ্য করা যায়। সাধারণ ভোটাররাও নির্বিঘ্নে পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিতে পেরে সন্তোষ প্রকাশ করছে।

শেরপুর পৌরসভার মেয়র পদে প্রধান তিন প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের নৌকার প্রার্থী গোলাম মোহাম্মদ কিবরিয়া লিটন সরকারি ভিক্টোরিয়া একাডেমি কেন্দ্রে, বিএনপির ধানের শীষের প্রার্থী এ বি এম মামুনুর রশীদ পলাশ খরমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে এবং আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী জগ প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী রফিকুল ইসলাম আধার কালিগঞ্জ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে শুরুর দিকেই নিজ নিজ ভোট প্রদান করেন।

ভোটদান শেষে সব প্রার্থীই উপস্থিত সাংবাদিকদের কাছে নির্বাচনের পরিবেশ নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেন। তবে জগ প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী রফিকুল ইসলাম আধার অভিযোগ করে বলেন, ৮ নম্বর ওয়ার্ডের মীরগঞ্জ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং ৬ নম্বর ওয়ার্ডের কসবা মোল্লাপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও আল ফালাহ কিন্ডারগার্টেন অ্যান্ড হাইস্কুল কেন্দ্রে আওয়ামী লীগের অতি উৎসাহী একটি সমর্থকগোষ্ঠী তাঁর এজেন্টদের কেন্দ্রে প্রবেশ করতে দেয়নি। তাঁদের ব্যাজ ছিড়ে ফেলা হয়েছে বলে উল্লেখ করেন।

ওই প্রার্থী আরো বলেন, ‘বিষয়টি জেলা প্রশাসক, রিটার্নিং কর্মকর্তা, পুলিশ সুপার ও সংশ্লিষ্টদের অবহিত করে প্রতিকার চেয়েছি।’ তিনি বলেন, ‘মানুষের মাঝে ভোটদানের স্বতঃস্ফুর্ততা আছে। সুষ্ঠু ভোট হলে ফল যাই হোক আমার মেনে নেওয়ার মানসিকতা আছে।’

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয়ের তথ্য মতে, শেরপুর পৌরসভায় মেয়র পদে সাতজন, সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৪৯ জন এবং সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ১৮ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এ পৌরসভায় ৩৫টি কেন্দ্রের ১৯৪টি বুথে মোট ৭৫ হাজার ৭৩৮ ভোটার ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন।

অপরদিকে, শ্রীবরদী পৌরসভায় মেয়র পদে ৪ জন, সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৩২ জন ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ১৬ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এ পৌরসভায় ৯টি কেন্দ্রের ৫৭টি বুথে মোট ২০ হাজার ৯০৯ ভোটার ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। এ দুটি পৌরসভায়ই এবার ইভিএম-এ ভোট অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

নির্বাচন সুষ্ঠু করতে শেরপুর পৌরসভায় তিন টিম র‍্যাব, তিন প্লাটুন বিজিবি, ৯ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও একজন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট এবং পর্যাপ্ত সংখ্যাক পুলিশ ও আনসার-ভিডিপি সদস্য নির্বাচনী মাঠে দায়িত্ব পালন করছেন।

এছাড়া শ্রীবরদী পৌরসভায় ২৪ জন র‍্যাব সদস্য, ২ প্লাটুন বিজিবি, ৯ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও একজন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটসহ পর্যাপ্ত সংখ্যাক পুলিশ ও আনসার-ভিডিপি সদস্য নির্বাচনী মাঠে দায়িত্ব পালন করছেন।

রিটার্নিং অফিসার ও জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ শানিয়াজ্জামান তালুকদার বলেন, ‘সকাল থেকেই কেন্দ্রগুলোতে ভোটারদের ব্যাপক উপস্থিতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে। নির্বাচনের সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখতে সবধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। কোথাও কোনো ধরনের অভিযোগ পাওয়ার সাথে সাথে তাৎক্ষণিক পদক্ষেপ গ্রহণ করা হচ্ছে। ভোটাররা নির্বিঘ্নে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করছেন।

সামাজিক মাধ্যমগুলোতে শেয়ার করুন...

Leave a Reply

এই বিভাগের আরও খবর...
© All rights reserved © 2021 www.banglarchokhnews.com  
Theme Customized BY LatestNews