1. [email protected] : mainadmin :
  2. [email protected] : special_reporter : special reporter
  3. [email protected] : subadmin :
বাংলার চোখ নিউজ | অনলাইন সংস্করণ | সংবাদ কর্মীদের মেরে ফেলার হুমকি
মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই ২০২১, ০৯:৩৫ অপরাহ্ন

সংবাদ কর্মীদের মেরে ফেলার হুমকি

বাংলার চোখ সংবাদ
  • সময়ঃ সোমবার, ২১ জুন, ২০২১

কাজী নাফিস ফুয়াদ (মাদারীপুর) প্রতিনিধি :

মাদারীপুর প্রধান ডাক অফিসের (এমএলএসএস) অফিস সহকারি (সরকারি) ছোলাইমান বেপারী (৫৭) অফিস করেন কোন নিয়মের তোয়াক্কা না করেই।

অনুসন্ধ্যানে জানা যায়, এ অনিয়ম চলে আসছে বছরের পর বছর যাবৎ। এতদিন তেমন করে কারও নজরে না আসলেও বিষয়টি নজরে এসেছে কয়েকজন সংবাদ কর্মী।

দীর্ঘ ৬মাস খোঁজ খবর নিয়ে দেখা যায়, বিগত সময় সে নানা অযুহাত ও ফন্দিফিকির করেই সরকারের সাথে অনিয়ম করে আসছে দীর্ঘদিন ধরে।

স্থানীয় কয়েক জনের সাক্ষাতে জানা যায়, মাদারীপুর সদর ডাক অফিসের এমএলএসএস কর্মচারী ছলেমান বেপারী বছরের প্রায় বেশিরভাগ সময়েই কাটান বিদেশে। জানা যায়, ব্যবসাও করেন বিদেশে। বিদেশ থেকে বাংলাদেশ এসে তুলে নেন সমস্ত মাসের বেতন। বিষয়টি যাচাই করতে গিয়ে বেরিয়ে আসলো সকল তথ্যই।

মাদারীপুরের সদর হাসপাতালের ড. অখিল চন্দ্র সরকারের নিকট থেকে ১২নভেম্বর, ২০২০ হতে ১ মাসের ছুটি নিয়ে চিকিৎসা করতে গেলেও ৭ মাসেও ফেরেননি চাকুরিতে।

সাক্ষাৎকারে ড. অখিল চন্দ্র সরকার বলেন, অসুস্থতার জন্য আমরা যে কাউকে মেডিকেল সার্টিফিকেট দিতে পারি। তবে কেউ যদি এটার সুযোগ নেয় তাহলে সেটা তার দায় নয়।

দূর্গাবর্দী গ্রামের ছলেমান বেপারী সম্পর্কে জানতে গেলে অনেকেই বলেন, তিনি বছরের বেশিরভাগ সময়েই কাটান বিদেশে। তার সহোদর ৪ ভাই থাকেন ইতালিতে। অফিস ফাঁকি দিয়ে সেখানেই তিনি প্রতি বছর করেন বানিজ্য। ঢাকায় তার নিজস্ব মালিকানাধীন একাধিক বাড়ি। এ বিষয়ে জানতে চাইলে তার বোন বলেন অন্যান্য ভাইয়েরা এসব তাকে করে দিয়েছেন।

ছলেমান বেপারীর সহোদর ছোট বোন রিক্তা বেগম(৩৪) আরও বলেন, তার ভাইকে তিনি বাসায় আসতে দেন না। ভাই দ্বিতীয় বিবাহ ঢাকায় করেছেন তিনি সেখানেই থাকেন বছরের বেশির ভাগ সময়। কেন আসতে দেন না জানতে চাইলে বলেন, দ্বিতীয় স্ত্রীর সাথে তাদের পরিবারের অভ্যন্তরীন সমস্যাই মূল।

মাদারীপুর প্রধান ডাক অফিসে তার বিষয়ে আইপিও অফিসার জিহাদুল ইসলাম জানায়, তার বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে।

ছলেমান বেপারীকে তিন তিন বার সোকোজ করা হলেও তিনি তার জবাব দেন নি। ডিপার্টমেন্টাল একটি মামলাও হয়েছে তার বিরুদ্ধে। এমনকি মামলার আইও নিয়োগ হয়েছে তদন্ত চলছে।

ডাকবিভাগের হেড অফিস তার ব্যপারে ব্যবস্থা নিচ্ছে এবং বিগত মাসের বেতনও আটকে দেয়া হয়েছে বলে জানান তিনি।

১৬ই জুন, ২০২১ দুপুরে তার বাসায় খোঁজ নিতে গিয়ে ছলেমান বেপারীকে পাওয়া গেলে তিনি বিরক্তি প্রকাশ করেন ও বিভিন্নভাবে মানসিক নির্যাতন এবং মেরে ফেলার হুমকি দেয় সাংবাদিক নাহিদ জামান সহ আরও দু’জনকে জন সংবাদ কর্মীকে।

বাড়ি ও আসেপাশের সকলকে ডেকে আটকে রেখে পিটিয়ে মেরে ফেলবে বলেও জড়ো করেন প্রায় ১৮/২০ জনকে।

সাংবাদিকদের প্রতি বিরক্তির কারণ জানতে চাইলে, তার পাশে বসা একজন বলে ওঠেন এর আগে নাকি ধান্দা করে কয়েকজন সাংবাদিক ৫০,০০০ টাকা নিয়েছে তাদের থেকে। বিষয়টির বিস্তারিত জানতে চাইলে পরক্ষনেই অস্বীকার করেন ছলেমান বেপারী।

তিনি এক সময়ের জাসদ নেতা ছিলেন বলেও দাবি করেন। তিনি আরও বলেন, আপনাদের মত সাংবাদিক মেরে ফেললে কিছুই হবে না।

একজন অফিস সহকারী এমন ঔদ্ধত্য আচরন কি করে করেন, কোথায় তার এত ক্ষমতা। যার কারণে বছরের পর বছর এমন অপকর্ম করে আসছেন রাষ্ট্রের সাথে। এটাই এখন বড় প্রশ্ন হয়ে রইলো সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে।

 

এমটিকে/বাংলারচোখ

সামাজিক মাধ্যমগুলোতে শেয়ার করুন...

Leave a Reply

এই বিভাগের আরও খবর...
© All rights reserved © 2021 | বাংলার চোখ নিউজ  
Theme Customized BY LatestNews