1. [email protected] : mainadmin :
  2. [email protected] : subadmin :
বাংলার চোখ | বাউফলে শ্রমিক সংকটে ক্ষেতের মুগ ডাল ক্ষেতেই ঝরে যাচ্ছে
সোমবার, ১০ মে ২০২১, ০৪:৩৯ পূর্বাহ্ন

বাউফলে শ্রমিক সংকটে ক্ষেতের মুগ ডাল ক্ষেতেই ঝরে যাচ্ছে

বাংলার চোখ সংবাদ
  • সময়ঃ মঙ্গলবার, ৪ মে, ২০২১
ইয়াকুব আলী মোল্লা রুবেল (বাউফল) প্রতিনিধি : 
পটুয়াখালী জেলার, বাউফল উপজেলায় প্রচন্ড তাপদাহের কারণে মুগ ডালের ক্ষেতে শ্রমিক সংকট দেখা দেয়। এতে ঝরে যাচ্ছে অধিকাংশ ডাল। শ্রমিক সংকটের কারন তীব্র তাপদাহ। শ্রমিকদের সাথে কথা হলে তারা বলেন, এই প্রচন্ড রৌদ্রের মধ্যে ক্ষেতে নেমে কাজ করতে খুব কষ্ট হয়, ফলে অনেকেই কাজ করতে আগ্রহ প্রকাশ করছে না এতে দেখা দিয়েছে শ্রমিক সংকট। এ কারণেই ক্ষেতের ডাল পেকে ক্ষেতেই ঝরে যাচ্ছে। এতে করে বিপাকে পড়েছে মুগডাল চাষিরা।
উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছর উপজেলায় ১৮ হাজার ৭৬২ হেক্টর জমিতে মুগ ডালের আবাদ করা হয়েছে। এর মধ্যে উচ্চফলনশীল বারি-৩, বারি-৫ ও বারি-৬ প্রজাতির ১৭ হাজার হেক্টর ও দেশি প্রজাতির সোনাইমুগ-খ্যাত প্রজাতির এক হাজার ৭৬২ হেক্টর জমিতে চাষ করা হয়েছে।
সরজমিনে উপজেলার কয়েকটি এলাকায় মুগডাল ক্ষেতে গিয়ে দেখা যায়, ডাল পেকে সবুজের ফাঁকে ফাঁকে কালো হয়ে গেছে। রৌদের তাপে ডালের ছড়া পেকে ফেটে গিয়ে ক্ষেতেই ঝরে পড়ে যাচ্ছে।
ডাল চাষি নাজিরপুর ইউনিয়নের শাহ আলম মিয়া বলেন, শ্রমিকদের অধিক মজুরি দিয়েও ক্ষেত থেকে ডাল তোলা যাচ্ছে না। দুই দিন ধরে এলাকার কিছু নারী শ্রমিকদের সঙ্গে চার ভাগের এক ভাগ ডাল বিনিময় চুক্তিতে শ্রমিকরা ক্ষেত থেকে ডাল তুলছেন। তাও আবার ভোর বেলা সূর্য ওঠার আগে থেকে শুরু করে সকাল সাড়ে আটটা পর্যন্ত কাজ করেন। কারণ এরপর যে রৌদ্রের তাপ শুরু হয়, সেই তাপের মধ্যে ক্ষেতে বসে কাজ করা কঠিন হয়ে পড়ে।
চরকালাইয়া গ্রামের চাষি বাদল মুন্সি বলেন, আগে ক্ষেত থেকে ডাল তুলতে নারী শ্রমিকদের দৈনিক আট-দশ ঘণ্টা কাজে তিন কেজি ডাল দিলে শ্রমিকের অভাব হতো না অথচ এ বছর তীব্র রোদ্রের তাপের কারণে শ্রমিকদের দিতে হচ্ছে তার সংগ্রহের চার ভাগের এক ভাগ ডাল। এতে করে চাষিদের লোকসানের আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

সামাজিক মাধ্যমগুলোতে শেয়ার করুন...

Leave a Reply

এই বিভাগের আরও খবর...
© All rights reserved © 2021 www.banglarchokhnews.com  
Theme Customized BY LatestNews